July 5, 2020, 5:18 pm

করোনা নিয়ে ‘খারাপ পরিস্থিতির’ আশঙ্কা পুলিশের

Spread the love

পুলিশের হিসাবে মার্চের প্রথম ২০ দিনে বিদেশ থেকে ফিরেছেন ২ লাখ ৯৩ হাজার মানুষ। তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক এসেছেন কোভিড-১৯ আক্রান্ত দেশগুলো থেকে। বিমানবন্দর থেকে বের হয়েই তাঁরা যাঁর যাঁর বাড়িতে চলে গেছেন। তাঁদের মধ্যে মাত্র ১৮ হাজার বিদেশফেরত স্বেচ্ছা কোয়ারেন্টিনে আছেন। অন্যদের কোনো হদিস নেই।

গত সপ্তাহ পর্যন্ত এসব প্রবাসী স্বাভাবিকভাবেই গ্রামে-গঞ্জে, হাটবাজারে ঘুরেছেন, সামাজিক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন। এই বিদেশফেরতদের মধ্যে কেউ সংক্রমিত হয়ে থাকলে তা কত মানুষের মধ্যে ছড়াবে, সে বিষয়ে কোনো ধারণাই করা যাচ্ছে না। মাঠ থেকে পাঠানো প্রতিবেদনের ভিত্তিতে পুলিশের কর্মকর্তারা এক ‘ভয়ংকর পরিণতি’র আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

এই অবস্থার বিপরীতে দেশে কোনো প্রস্তুতি খুবই সামান্য। চিকিৎসক-নার্সদের এখন পর্যন্ত ঠিকভাবে সুরক্ষা সরঞ্জাম বা পিপিই সরবরাহ করা হয়নি। জ্বর-কাশি-গলাব্যথার রোগী হাসপাতালে এলেই দূরত্ব বজায় রাখছেন নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন চিকিৎসকেরা।

পুলিশ সদর দপ্তরের কর্মকর্তারা বলছেন, জানুয়ারি থেকে সাড়ে ছয় লাখ মানুষ দেশে এসেছেন। এর মধ্যে মার্চ মাসের ২০ দিনেই এসেছেন ২ লাখ ৯৩ হাজার। আর গতকাল পর্যন্ত কোয়ারেন্টিনে গেছেন মাত্র ১৭ হাজার ৭৯০ জন। দেশে আসার সময় সঠিক ঠিকানা না দেওয়া এবং পাসপোর্টের ঠিকানায় অবস্থান না করার কারণে ফিরে আসা এসব লোককে খুঁজে পাচ্ছে না পুলিশ।

দিন দশেক আগে যুক্তরাষ্ট্রফেরত দুজন যোগ দিয়েছিলেন এক বিয়ের আসরে, সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত অনেকেই দুদিন আগে গিয়েছিলেন গাইবান্ধা-৩ আসনের উপনির্বাচনে ভোট দিতে; এরপর এল দুঃসংবাদ। এরপর রোববার জানা যায়, যুক্তরাষ্ট্রফেরত সেই দুই ব্যক্তির শরীরে করোনাভাইরাস ধরা পড়েছে।

গতকাল পর্যন্ত দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী ছিলেন ৩৩ জন, যাঁদের ৯ জনই শিবচরের। আর এই ৯ জনের মধ্যে ৬ জনের সংস্পর্শে ছিলেন অন্তত ৩৫০ ব্যক্তি। তাঁদের মধ্যে ১০৭ জনকে চিহ্নিত করে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। বাকি ২৪৩ জনের কোনো হদিস নেই। তাঁদের শরীরে করোনার উপসর্গ আছে কি না, তা কেউ নিশ্চিত হতে পারছে না।

পুলিশ বলছে, দেশে ফিরে আসা লোকজন যদি স্বেচ্ছায় নিজেদের বিচ্ছিন্ন না করেন, অন্যদের সঙ্গে মেলামেশা করেন, তাহলে এক ভয়াবহ পরিণতি ডেকে আনবে।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানিয়েছে, বিদেশফেরত যেসব ব্যক্তি কোয়ারেন্টিনের ব্যাপারে সরকারি নির্দেশনা না মেনে অন্যদের ঝুঁকির মধ্যে ফেলছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়। এরপর পুলিশের বিশেষ শাখা মার্চ মাসে যাঁরা দেশে এসেছেন, তাঁদের তালিকা প্রস্তুত করে। এ সময় দেশে আসা ২ লাখ ৫৭ হাজার দেশি ও ২৬ হাজার বিদেশির তালিকা সারা দেশে পুলিশ সুপারদের কাছে পাঠানো হয়। এখন এরা কোয়ারেন্টিনের নিয়মকানুন সঠিকভাবে অনুসরণ করছে কি না, তা জানতে পুলিশ তাদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে। এর আগে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে জনসচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করছে পুলিশ। বিনা প্রয়োজনে বাইরে ঘোরাফেরা না করার জন্য জনগণকে অনুরোধ জানিয়ে মাইকিং করছে। কোথাও কোথাও প্রয়োজনে মসজিদের মাইক ব্যবহার করে প্রচারণা চালাচ্ছে পুলিশ।

চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের কমিশনার মাহবুবর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, এখন পর্যন্ত ৭০০ লোককে কোয়ারেন্টিনে রাখা সম্ভব হয়েছে। এসব লোকের বাড়ি বাড়ি ফল পাঠিয়ে দিচ্ছে পুলিশ। তারপরও সব লোক পুলিশের ডাকে সাড়া দিচ্ছে না। তিনি বলেন, ‘বিদেশফেরত মানুষ নিজের উদ্যোগে যদি এগিয়ে না আসে, তাহলে ভয়াবহ ক্ষতি হয়ে যাবে। সে ক্ষতি সামাল দেওয়া আমাদের সবার পক্ষে কঠিন হয়ে যাবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category
Translate »